উখিয়া ইউএনও ফুটবল কাপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে জালিয়াপালং বাছাই একাদশ

0
99

ইনানী ডেস্ক

উখিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) কার্যালয়ের আয়োজনে ‘ইউএনও ফুটবল কাপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে জালিয়াপালং বাছাই একাদশ। শুক্রবার বিকালে উখিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে খেলার মাঠে অনুষ্ঠিত এ টুর্ণামেন্টে বিজয় লাভ করেন জালিয়া পালং বাঁচাই একাদশ। আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) এর সহযোগিতায় বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনায় সফলভাবে শেষ হয়েছে এই আয়োজন।
উখিয়া উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়ন থেকে ১০ টি দল এই টুর্নামেন্টে অংশ নিয়েছিল। সর্বশেষ শুক্রবার ফাইনাল ম্যাচে জালিয়াপালং বাছাই একাদশ ১-০ গোলে  পাতাবাড়ি শৈলেরঢেবা বাছাই একাদশকে পরাজিত করে ইউএনও কাপ ২০১৯ জিতল। উখিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে অনুষ্ঠিত হয় এই ফুটবল প্রতিযোগিতা।
২০১৭ সালের আগস্ট থেকে পৃথিবীর অন্যতম বৃহৎ শরণার্থী জনগোষ্ঠীকে আশ্রয় দেওয়া উখিয়ার বাসিন্দাদের মধ্যে সামাজিক সংহতি এবং যুবসমাজকে নেতৃত্বদানে উৎসাহিত করতে সরকারের স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন এই টুর্নামেন্টের আয়োজন করেছে। আইওএম-এর সহযোগী সংস্থা অ্যাকশন এইড বাংলাদেশও সহযোগীতা করে এই আয়োজনে।
উখিয়ার ইউএনও মোঃ নিকারুজ্জামান সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে টুর্নামেন্টের বিজয়ী এবং রানার আপ দলের হাতে পুরষ্কার তুলে দেন। সমাপনী অনুষ্ঠানে উখিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক হামিদুল হক চৌধুরী, রত্নপালং, হলদিপালং, রাজালং, পালংখালী ও জলিয়াপাল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানবৃন্দ এবং সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।
আইওএম-এবং সহযোগী সংস্থা অ্যাকশন এইড বাংলাদেশকে ধন্যবাদ জানিয়ে ইউএনও মোঃ নিকারুজ্জামান বলেন, “সামাজিক সংহতি এবং যুবসমাজকে নেতৃত্বদানে উৎসাহিত করতে উপজেলা প্রশাসন সর্বদা সচেষ্ট এবং এমন আয়োজন ভবিষ্যতে আরো হবে।”
উল্লেখযোগ্য সংখ্যক দর্শকদের পাশাপাশি সমাপনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন উখিয়া ইউএনও কার্যালয়, আইওএম এবং অ্যাকশন এইড বাংলাদেশের প্রতিনিধিবৃন্দ । বিজয়ী দলটি ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের সাথে একটি প্রীতি ম্যাচ খেলবে বলে জানান আয়োজকবৃন্দ।
আইওএম বাংলাদেশে মিশনের উপ-প্রধান ম্যানুয়েল পেরেইরা বলেন: “আইওএম এই উদ্যোগে যোগ দিতে পেরে খুব আনন্দিত এবং এমন আরও আয়োজনের মাধ্যমে স্থানীয় যুবকদের সাথে থাকতে চায়। একটি বুদ্ধিমান শরীর ও একটি বুদ্ধিমান মন একটি সুস্থ এবং সংহতিশীল সম্প্রদায়ের স্তম্ভ এবং এই ফুটবল টুর্নামেন্টটি এমন সম্প্রদায়ে অবদান রাখার বাহন হিসেবে প্রতীয়মান হয়েছে।”
এই টুর্নামেন্টটি উখিয়ার যুব সমাজের উৎসাহ দিয়েছে এবং স্থানীয় জনগোষ্ঠীরাও বিনোদিত হয়েছে। এ ধরণের আয়োজন আরও করা দরকার বলে মনে করেন স্থানীয়রা। জালিয়াপালং বাছাই একাদশ-এর অধিনায়ক মাহমুদ রাশেদ বলেনঃ “বহুল প্রতীক্ষিত এই টুর্নামেন্টের জন্য উখিয়া ইউএনও কার্যালয়কে ধন্যবাদ। ভবিষ্যতে আমরা উখিয়া এবং টেকনাফে এ ধরণের আরও আয়োজন দেখতে চাই যার মাধ্যমে  যুবসমাজের মধ্যে নেতৃত্বগুণ এর মত নানা সামাজিক গুণাবলির প্রসার ঘটবে।“
এর আগে, গত ২৫ নভেম্বর কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন, আইওএম এবং অ্যাকশন এইড বাংলাদেশের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here