পোকখালী সালিশী বৈঠকে প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে যুবক আহত

0
56

মোঃ কাউছার ঊদ্দীন শরীফ, ঈদগাঁওঃ

কক্সবাজার সদর উপজেলার পোকখালীতে সালিশী বৈঠকে সন্ত্রাসীদের উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে এক ব্যাক্তি গুরুতর আহত হয়েছে। আহত ব্যাক্তি বর্ণিত ইউনিয়নের মালমোরা পাড়ার হাজী ছৈয়দ করিমের পুত্র হামিদুল হক(৩৬) বলে জানা গেছে। ছুরিকাহত হামিদুল হক কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার অবস্থা আশংকাজনক বলে জানাগেছে ।

শনিবার (২৭ফেব্রূয়ারী) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বর্ণিত ইউনিয়নের পশ্চিম পোকখলী মালমোরা পাড়া এলাকায়
এ ঘটনা ঘটে ।

জানাযায়, স্থানীয় ওয়ার্ড আ’লীগ সভাপতি ও সম্পাদকের নেতৃত্বে এলাকার সচেতন মহলের সমন্বয়ে উভয় পক্ষের প্রতিনিধিসহ বাদী-বিবাদীদের দীর্ঘদিনের জায়গা জমির বিরোধ নিস্পত্তির জন্য বিচারের কার্যক্রম চলছিল।

কিন্তু বিচার চলাকালীন কেউ কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই একই এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও প্রচলিত আইন অমান্যকারী, মাদকসেবী ইমরান পিতা ছৈয়দ আহমদ এবং রাশেল পিতা-শুক্কুর হাজী এর নেতৃত্বে আগে থেকে অস্ত্র-শস্ত্রে উৎপেতে থাকা ইমরানের ভাই জয়নাল, হাবিব উল্লাহ, সায়মন, ও হাবিব উল্লাহর ছেলে ইব্রাহিমসহ ৮/১০ জন প্রতিপক্ষের উপর হামলা করে।
হামলাকারীদের উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে হামিদুল হক রক্তাক্ত অবস্থায় মাঠিতে লুটিয়ে পড়ে। এসময় আহতের স্বজন ও উপস্থিত জনতা হামলাকারীদের প্রতিহত করার চেষ্টা করলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। পরে স্বজনরা আহতকে প্রথমে ঈদগাঁওয়ের একটি হাসপাতালে নিয়ে আসে। আহতের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

সালিশে উপস্থিত আ’লীগ সভাপতি নুরুল আলম জানান, উভয় পক্ষের সম্মতিতে আমরা স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যাক্তিদের সাথে নিয়ে মিমাংসার জন্য বসেছিলাম। কিন্তু বিচার চলাকালীন ইমরানেরর নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা হামলা করে হামিদুল হকের মাথা ফাটিয়ে দেয়।

এব্যাপারে স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার লুৎফুর রহমান জানান, বৈঠকে আমি উপস্থিত ছিলাম না। তবে তাদের পারিবারিক জায়গা সম্পত্তির বিরোধে মারামারির কথা শুনেছি।
অভিযোগ উঠা ইউনিয়ন বিএনপি নেতা রাশেল মুঠোফোনে মারামরির ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। চেয়ারম্যান রফিকের সাথে যোগাযোগ করা হলে এ ধরনের ঘটনা শুনেছেন বলে জানান ।
হামলাকারীদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান আহতের বড় ভাই শফি উল্লাহ।