রোহিঙ্গা ক্যাম্পেই চলে ইয়াবার বেচাকেনাঃ ধরা ছোঁয়ার বাইরে রোহিঙ্গা মাঝি গডফাদার মোহাম্মদ নুর

0
31

ক্রাইম রিপোর্টার

কক্সবাজারের উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলো এখন ইয়াবার হাট হিসেবে পরিণত হয়েছে কিন্তু ধরা ছোঁয়ার বাইরে গডফাদাররা। সরকারি বেসরকারি এনজিও সংস্থার ভুরি ভুরি ত্রাণ সামগ্রী ও নগদ টাকা পেয়ে এসব রোহিঙ্গারা আরও উন্নত জীবনের আশা করে জড়িয়ে পড়েছে ইয়াবা পাচারে। বিশেষ করে রোহিঙ্গা নারীরা ইয়াবা পাচারের বাহক হিসেবে ব্যবহৃত হওয়ায় অনেক সময় তারা আইনশৃঙ্খলা বাহীনির নজরদারীর বাহিরে থাকে।

২০১৭ সালের ২৫শে আগস্টের পর থেকে যে সমস্ত রোহিঙ্গা মিয়ানমার থেকে পালিয়ে উখিয়া টেকনাফের বিভিন্ন ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছে। এসব স্বাবলম্বী রোহিঙ্গাদের পুঁজি মিয়ানমারের কিয়াতের বিনিময়ে ইয়াবা এদেশে নিয়ে আসা। যাতে অতি সহজে ইয়াবা হাত বদল করে জীবন-জীবিকা নির্বাহ করতে পারে। বর্তমানে ইয়াবা পাচার দিন দিন বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে বলে জানিয়েছেন রোহিঙ্গা নেতারা।

জামতলি ১৬ ক্যাম্পের হেড মাঝি দিল মোহাম্মদের ছেলে মোঃ নুর (৩৫) ইয়াবা ও মালেশিয়া নারী পাচার সিন্ডিকেটের প্রধান সে আবার নিষিদ্ধ সংগঠন আরেসার সদস্য বলে জানা যায় , তিনি বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডে জড়িত সাধারণ রোহিঙ্গারা বলেন। এসব রোহিঙ্গারা বালুখালীর পূর্বপাড়া নাফ নদী পার হয়ে সরাসরি ক্যাম্পে চলে আসে ইয়াবার চালান নিয়ে।

উপজেলা প্রেসক্লাব উখিয়া সাধারণ সম্পাদক জানান, ডেইলপাড়া সীমান্ত এলাকা দিয়ে রোহিঙ্গাদের মাধ্যমে ইয়াবার চালান সরাসরি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পৌঁছে যাচ্ছে। এছাড়াও স্থানীয় একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট এসব ইয়াবা স্থানীয়ভাবে বাজারজাত করার কারণে স্থানীয় যুব সমাজ লেখাপড়া ছেড়ে ইয়াবাসক্ত হয়ে পড়েছে।

স্থানীয় কিছু প্রভাবশালীর যোগসাজশে রোহিঙ্গারা গড়ে তুলেছে ইয়াবা ও নারী পাচার সিন্ডিকেট। রোহিঙ্গা নারী পুরুষরা দিন দিন ব্যাপরোয়া হয়ে ইয়াবা ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েছে। এ পর্যন্ত অনেক রোহিঙ্গা নারী পুরুষকে ইয়াবা পাচারের সময়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আটক হলেও ধরা ছোঁয়ার বাহিরে গডফাদাররা । বিভিন্ন কৌশলে মিয়ানমার থেকে ইয়াবা নিয়ে তারা ক্যাম্পে আসছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here