হ্নীলায় পৈত্রিক জমি নিয়ে প্রতিবাদের নামে অপব্যাখ্যা করায় জমির প্রকৃত মালিকের সর্বশেষ বিবৃতি

0
133

গত ১৪ নভেম্বর টেকনাফটুডে নামের একটি অনলাইনে ‍‍“হ্নীলায় পৈত্রিক জমি সম্পর্কে বিভ্রান্তিকর সংবাদে ভূলু সওদাগরের ব্যাখ্যা ও প্রতিবাদ” শীর্ষক একটি ভিত্তিহীন ও অপব্যাখ্যা নির্ভর প্রতিবাদ ছাপানো হয়; যা আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। উক্ত প্রতিবাদের ব্যাখ্যায় আমার মেঝো ছেলে রমিজ আহমেদ ও তার স্ত্রীকে মাদক ব্যবসায়ী উল্লেখ করে মিথ্যা তথ্য প্রচার করা হয়েছে। প্রকৃত পক্ষে যে এই তথ্য প্রচার করেছে সেও আমারই সর্বকণিষ্ট ছেলে। মূলত মাদকাসক্তি, হিংসা ও লোভ থেকে সে এই মিথ্যা তথ্য প্রচার করেছে। নিজের অপরাধ ধামাচাপা দিতে নিরীহ এক ভাইয়ের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছে। আমার ছোটো ছেলে মো. আমিন প্রকাশ ভূলো দীর্ঘদিনের বখে যাওয়া এক সন্তান। ৪সন্তানের মধ্যে ভূলো সবার ছোটো। একারণে সে বুঝে না বুঝে ভাইদের সাথে তর্কে লিপ্ত হয়। এবং কুসঙ্গের পাল্লায় পড়ে দিনে রাতে একাধিক বার মাদক সেবন করে। যার ফলে সে হিতাহিত বুদ্ধিজ্ঞান হারিয়ে প্রায়ই অপ্রকৃতস্থ থাকে এবং তার ভাইদের সাথে খারাপ আচরণ করে। পরবর্তীতে এই বিষয়টিকে পুঁজি করে স্থানীয় চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ী আইয়ুব প্রকাশ গুটি লালাইয়্যার প্ররোচনায় ভাইয়ে ভাইয়ে রক্তপাতের মতো ঘটনাও ঘটিয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো- জমিজিরাত সংরক্ষণের কৌশলগত পদ্ধতির কারণে আমিনের জন্মের আগে আড়াই বিঘা করে মোট পাঁচ বিঘা জমি বড় দুই ছেলেকে হেবা করেছিলাম। পরবর্তীতে আমিনের ভূমিষ্টের পর সে প্রাপ্ত বয়স্ক হলেও তার জন্যও তিন বিঘা জমি বরাদ্দ রাখি। এবং তা আমার মৃত্যুর পর বুঝে পাওয়ার সুযোগ করে দিই। কিন্তু আমার ছোটো ছেলে আমিন এতোটাই মাদকাসক্ত থাকে যে কোনো কিছু না বুঝেই সম্পদের ভাগ বণ্টনের কথা তোলে তার অপরাপর ভাইদের সাথে ঝগড়া বিবাদ লাগিয়ে আসছে। একারণে আমি বাধ্য হয়ে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করি। এবং সর্বশেষ তাকে টেকনাফ থানা পুলিশের হেফাজতে কারাগারে প্রেরণ করার ব্যবস্থা করি।

প্রকৃতপক্ষে আমি জমির মালিক। আমার জীবদ্দশায় এখনও কোনো সন্তানকে আমি জমি বন্টন করে দিইনি। কিন্তু সেই সময় কৌশলগত কারণে কিছু সম্পদ দুই সন্তানের নামে হেবা করতে হয়েছিলো। এটাকে আমার ছোটো ছেলে আমিন ভুল বুঝে বারবার ভাইদের সাথে ঝগড়া লাগায়। এসব বিষয়ে ইন্ধন দেয় স্থানীয় চিহ্নিত ইয়াবা কারবারী আইয়্যুব প্রকাশ লালাইয়্যা। অথচ আমিনের নামে আমি ইতিমধ্যেই তিন বিঘা সম্পদ বরাদ্দ করে রেখেছি এবং দোকানগুলোও তাকে ভোগ করতে দিয়েছি। এরপরও সে মাদকাসক্তির কারণে এভাবে একের পর এক নির্যাতন করছে।
সুতরাং প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি অনুরোধ জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের এই বিষয়টিকে যারা ভিন্ন খাতে নেওয়ার চেষ্টা করছে তাদের ব্যাপারে সচেতন থাকুন। কারও মিথ্যা তথ্য কিংবা গুজবে কান দিবেন না। আমার যে ছেলেটি অন্যায় করেছে তার ব্যাপারে যেমন আইনগত ব্যবস্থা নিয়েছি আবার যে ছেলেটি নিরাপরাধ এবং হামলায় আহত হয়েছে তার বিরুদ্ধে মিথ্যা তথ্য প্রচার করায় এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

প্রতিবাদকারী :
আলহাজ্ব মাওলানা আবুল মঞ্জুর
সাবেক মুহাদ্দেস, হ্নীলা দারুস্সুন্নাহ মাদ্রাসা, টেকনাফ।
সাং-পশ্চিম পানখালী, হ্নীলা,টেকনাফ,কক্সবাজার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here