1. mdjoy.jnu@gmail.com : dainikjoybarta.online : Shah Zoy
  2. nagorikit@gmail.com : Inani News 24 :
সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ০৮:০৪ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
কক্সবাজারের রামু গর্জনিয়া ইউনিয়ন বাস্তুহারালীগের সাবেক সভাপতি শাহিনের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন রামুতে জুতা পায়ে শহীদ মিনারে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানেরা ক্যাম্প ২৬ এ বিশ্ব টয়লেট দিবস উদযাপন ও ওয়াশ মেলার আয়োজন! ঈদগাঁও থেকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী পরিচয়ে ব্যবসায়ীকে তুলে নেয়ার ১০ দিনেও খোঁজ নেই কুতুপালং বাজার সমিতির নির্বাচনে মোহাম্মদ আলীর ব্যাপক গণসংযোগ একজন নিষ্ঠাবান, মানবিক সফল ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল হুদা। সেভ দ্য ফিউচার ফাউন্ডেশন কক্সবাজার জেলা শাখার বিশেষ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়। ক্যাম্প-২৭ এ বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস পালিত! উখিয়ার জালিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদে শহীদ শেখ রাসেলের ৫৯তম জন্মদিন পালন কক্সবাজার জেলা পরিষদ নির্বাচন আজ

কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া মালাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ

  • প্রকাশিত: শনিবার, ৫ মার্চ, ২০২২
  • ৮০ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্ট:

কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার মালাপাড়া ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত মালাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সরকারি বিধি মোতাবেক একজন পরিচ্ছন্নতাকর্মী নিয়োগে টাকার বিনিময়ে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহীন আহমেদ ও মালাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ফজলুল হকের বিরুদ্ধে।

নিয়োগ বঞ্চিত প্রার্থী ও মালাপাড়া গ্রামের নূরুল ইসলামের ছেলে মোঃ রুবেল আহমেদ গত (২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২২) বুধবার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও শিক্ষা অফিসারের বরাবরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগে রুবেল আহমেদ বলেন কমিটির কয়েকজন অসাধু সদস্যরা, প্রধান শিক্ষক ও সভাপতি এই নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছেন এবং তাদের পছন্দের প্রার্থীকে নিয়োগ দিতে গোপনে উক্ত নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে।রুবেল হোসেন ও পরিবারের দাবি নিয়োগ প্রাপ্ত বিল্লাল হোসেন চতুর্থ শ্রেণীতে লেখাপড়া শেষ করে, কৃষি কাজ করা অবস্থা বিদেশে চলে যায়,কিছু দিন পৃর্বে বিদেশ থেকে দেশে এসে পুনরায় কৃষি কাজে নিয়োজিত ছিলেন। বর্তমান মালাপাড়া স্কুলে পরিচ্ছন্নতা কর্মী হিসেবে সে অর্থের বিনিময়ে নিয়োগ পাওয়ায় এলাকাবাসীর সুশীল সমাজ মর্মাহত! স্থানীয় এক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক শাহনাজ আহমেদ বলেন, নিয়োগ প্রাপ্ত বিল্লাল হোসেন আমাদের স্কুল থেকে চতুর্থ শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করে বিদেশে চলে গেছে। সে বিদেশ থেকে এসে কৃষিকাজে ব্যস্ত ছিলেন এখন সে কি ভাবে অষ্টম শ্রেনীর পাস হয়? স্থানীয় সাবেক মেম্বার মিজানসহ তাদের প্রশ্ন সে কি ভাবে অষ্টম শ্রেণী পাশের সাটিফিকেট ব্যাবহার করলো?তারা অর্থের বিনিময়ে নিয়োগ দিয়ে এ স্কুলের সুনাম নষ্ট করেছে আমরা তিব্র নিন্দা জানাই।

কথা হয় বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত ৪র্থ শেনীর কর্মকর্তা রুবেলের বাবা নুরুল ইসলাম ও মায়ের সাথে।তারা বলেন বলেন,আমাদের ছেলে তারা নিয়োগ দিবে প্রতিশ্রুতি দিয়ে প্রতিষ্ঠানের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক কথা রাখেনি। নিয়োগের আগে তারা আমাদের কাছে ৫ লক্ষ টাকা দাবী করেন কিন্তু আমরা গরীব মানুষ এতো টাকা দিতে পারিনি বলে বরং অবৈধ অর্থের বিনিময়ে ভূয়া সার্টিফিকেট দেখিয়ে অন্যজনকে নিয়োগ দিয়েছে।

এবিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহীন আহমেদ বলেন,ব্রাহ্মণপাড়া মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আমাকে বললে আমি সাটিফিকেট ও বয়স যাচাই – বাছাই করে দেখি সকল কিছু ঠিক আছে। নিয়োগ সংক্রান্ত আমি কোন টাকা গ্রহণ করি নাই। এ অভিযোগ মিথ্যা বানোয়াট।

অএ প্রতিষ্ঠানের সভাপতি ফজলুল হক বলেন,
উপরোক্ত কর্মকর্তাদের সমম্বয়ে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়। আমার নামের অভিযোগ গুলো সঠিক নয়।

ব্রাহ্মণপাড়া মাধ্যামিক শিক্ষা কর্মকর্তা ফারুক আহমেদ বলেন, অভিযোগটি ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে। বয়স নিয়ে একটু সমস্যা আছে।আশাকরি এক, দুই দিনের মধ্যে বিষয়টি সমাধানের আসবে।আর অভিযোগের সত্যাতা পেলে তদন্ত স্বাপেক্ষে ব্যাবস্হা নেয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন