1. mdjoy.jnu@gmail.com : dainikjoybarta.online : Shah Zoy
  2. nagorikit@gmail.com : Inani News 24 :
সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ০৭:২৪ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
কক্সবাজারের রামু গর্জনিয়া ইউনিয়ন বাস্তুহারালীগের সাবেক সভাপতি শাহিনের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন রামুতে জুতা পায়ে শহীদ মিনারে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানেরা ক্যাম্প ২৬ এ বিশ্ব টয়লেট দিবস উদযাপন ও ওয়াশ মেলার আয়োজন! ঈদগাঁও থেকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী পরিচয়ে ব্যবসায়ীকে তুলে নেয়ার ১০ দিনেও খোঁজ নেই কুতুপালং বাজার সমিতির নির্বাচনে মোহাম্মদ আলীর ব্যাপক গণসংযোগ একজন নিষ্ঠাবান, মানবিক সফল ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল হুদা। সেভ দ্য ফিউচার ফাউন্ডেশন কক্সবাজার জেলা শাখার বিশেষ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়। ক্যাম্প-২৭ এ বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস পালিত! উখিয়ার জালিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদে শহীদ শেখ রাসেলের ৫৯তম জন্মদিন পালন কক্সবাজার জেলা পরিষদ নির্বাচন আজ

বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিলেন মনিরুল ইসলাম

  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ১ এপ্রিল, ২০২২
  • ৮২ বার পড়া হয়েছে

টেকনাফ প্রতিনিধি

বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিতে সাঁতরিয়েছেন চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী ১০ বছরের লারিসাসহ ৬ সাঁতারু। এদের মধ্য ফেনী জেলার ফাজিল পুর গ্রামের মনিরুল ইসলাম নামে এক যুবক সবার আগে সাঁতার শেষ করেছেন। তিনি প্রথম বার বাংলা চ্যানেল সাঁতার প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিলেন। তার বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিতে সময় লেগেছে ৬ ঘন্টা ৩৪ মিনিট।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টা ৫০ মিনিটের সময় কক্সবাজারের সীমান্ত উপজেলা টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপের পশ্চিমপাড়া সমুদ্রসৈকত থেকে ৬ সাঁতারু সাঁতার শুরু করেন।
বাংলা চ্যানেল ১৭তম সাঁতারের আয়োজন করেছে ‘ষড়জ অ্যাডভেঞ্চার’ ও ‘এক্সট্রিম বাংলা’।

টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথের স্রোতোধারাটির নাম ‘বাংলা চ্যানেল’। ১৬ দশমিক ১ কিলোমিটার দূরত্বের বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিয়ে সাঁতার শেষ হয় সেন্টমার্টিন দ্বীপে।

ষড়জ অ্যাডভেঞ্চারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা লিপটন সরকার বলেন,১০ বছরের মেয়ে সৈয়দা লারিসা রোজেন দ্বিতীয় বারের মতো বাংলা চ্যানেল সাঁতার প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করেন। লারিসার সঙ্গে সাঁতারে অংশ নিচ্ছেন তার বাবা সৈয়দ আক্তারুজ্জামান ও বড় ভাই সৈয়দ আরবিন আয়ান। রেসকিউ দলের সঙ্গে নৌকায় ছিলেন তার মা। লারিসা সাড়ে চার ঘন্টা সাঁতরিয়ে ৯ কিলোমিটার পথ পাড়ি দেন। সাগর উত্তাল থাকায় শেষ পর্যন্ত তাকে নৌকায় উঠে আসতে হয়।

ষড়জ অ্যাডভেঞ্চারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা লিপটন সরকার জানান, এখন পর্যন্ত ১৮ বার বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিয়েছি। আজ সফল হতে পারলে টানা ১৯ বার বাংলা চ্যানেল পাড়ি দেওয়ার রেকর্ড গড়তে পারতাম । দশ বছরের মেয়ে লারিসা যদি আজ বাংলা চ্যানেল সফল ভাবে অতিক্রম করতে পারতো, সে সর্বকনিষ্ঠ সাঁতারু হিসেবে বাংলা চ্যানেল সাঁতার অতিক্রমকারীর রেকর্ড অর্জন করতো ।

বঙ্গোপসাগরে দূরপাল্লার সাঁতারের উপযোগী ১৬ দশমিক ১ কিলোমিটার দূরত্বের বাংলা চ্যানেল আবিষ্কার করেন প্রয়াত কাজী হামিদুল হক। ২০০৬ সালে প্রথম বারের মতো বাংলা চ্যানেল সাঁতার অনুষ্ঠিত হয়। সেই বার সাঁতারে অংশ নিয়ে ছিলেন লিপটন সরকার, ফজলুল হক সিনা ও সালমান সাইদ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন